Press "Enter" to skip to content

শোডাউন দিয়ে কর্মসূচি- যে কোন মূল্যে মোদী প্রতিরোধের ডাক

ভারতের চরম হিন্দ্যুত্ববাদী বিজেপির সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আগমন ঠেকাতে বড় ধরনের শোডাউন দিল সমমনা ইসলামি দলগুলো। দেশটিতে উগ্রু হিন্দুরা মুসলিমদের ওপর চালানো হামলা, নির্যাতন ও হত্যাকে কেন্দ্র করে নরেন্দ মোদীকে যেকোনও মূল্যে প্রতিহত করত চায়।

শুক্রবার (৬ মার্চ) জুমার নামাজের পৃথক পৃথক ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের করে দলগুলো। তাদের মিছিলে বাইতুল মোকাররম, গুলিস্তান, পল্টন, বিজয়নগর, কাকরাইল এলাকা মিছিলে পরিণত হয়। লাখো মুসল্লি এস বিক্ষোভে যোগ দেন।

বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেট থেকে দুপুর ২টার দিকে এ বিক্ষোভ শুরু হয়। টানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলে।  অংশগ্রহণকারীরা নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেন। মোদিকে প্রতিহতের ঘোষণা দেন তারা।

বিক্ষোভ থেকে মুসলমানদের ওপর হিন্দু সন্ত্রাসীদের নৃশংস হত্যা, পবিত্র মসজিদে আগুন জ্বালিয়ে মিনারে হনুমানের পতাকা টানানো, মুসলমানদের বাড়িঘরগুলোতে অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে দেশটির উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন ঢাকা সফর ঠেকাতে আগামী ১২ মার্চ সারা দেশে একযোগে মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে সমমনা ইসলামী দলগুলো।  আসর নামাজের পর এ মানববন্ধন রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে গাবতলী, সদরঘাট থেকে টঙ্গী পর্যন্ত হবে।

বিক্ষোভ সমাবেশে ওলামা মাশায়েখরা বলেছেন, ‘যেকোনও মূল্যে তারা মোদির ঢাকা সফর প্রতিহত করবেন। এ জন্য মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর দায়দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।

জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগরীর সভাপতি আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী বলেন, ‘আগামী ১২ মার্চ ঢাকা ভার্সিটি, বুয়েটসহ দেশের সকল ভার্সিটির ছাত্রসহ দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের ছাত্র-জনতাকে মোদী প্রতিহতের এই শান্তিপূর্ণ মানবন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার জন্য আমি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। সেদিন পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে, ইনশাআল্লাহ।’

যেকোনও মূল্যে এই খুনি মোদিকে বাংলার জমিনে আসতে দেয়া হবে না, হবে না, হবে না। বাংলার তৌহিদী জনতা মাঠে নেমে এসে ইনশাআল্লাহ যেকোনও মূল্যে মোদিকে প্রতিহত করবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

এসময়  বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন খেলাফত আন্দোলনের আমির আল্লামা শাহ আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি শায়খুল হাদিস মাওলানা আব্দুর রব ইউসূফী, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড.আহমদ আব্দুল কাদের, খেলাফত আন্দোলনের নায়বে আমির মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব শায়খুল হাদিস মাওলানা মামুনুল হক, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা মোস্তফা তারেকুল হাসান প্রমুখ।

%d bloggers like this: