মিতুকে প্রচণ্ড ভালোবাসতেন ডা. আকাশ

স্ত্রী তানজিলা হক মিতুকে প্রচন্ড ভালোবাসতেন ডা. মোস্তফা মোরশেদ আকাশকে।স্ত্রীর প্রতি এই চিকিৎসকের ভালোবাসা ছিল অকৃত্রিম। তাই তো স্ত্রীর অপকর্মকে বারবার ক্ষমা করেছেন তিনি। শেষ পর্যন্ত স্ত্রীকে পাপের পথ থেকে ফেরাতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তরুণ সম্ভাবনাময়ী এ চিকিৎসক।

স্ত্রীর প্রতি ডা. আকাশের ভালোবাসার বিষয়টি ফুটে উঠেছে মৃত্যুর আগে ফেসবুকে দেয়া তার স্ট্যাটাসে। স্ত্রী তানজিলা হক মিতুকে উদ্দেশ্য করে বৃহস্পতিবার ভোর ৬টায় ফেসবুকে শেষ স্ট্যাটাস দেন ডা. আকাশ।

স্ট্যাটাসটি ছিল এ রকম- ‘ভালো থেকো আমার ভালোবাসা, তোমার প্রেমিকদের নিয়ে’। এ স্ট্যাটাস দিয়েই শরীরে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে আত্মহত্যা করেন ডা. আকাশ (৩২)।

মৃত্যুর ১ ঘণ্টা আগে ভোর ৫টায় ফেসবুকে আরেকটি স্ট্যাটাস দেন ডা. আকাশ। যেখানে তার বুকের ভেতরকার যন্ত্রণা মুঠোফোনের বাটনের মাধ্যমে ফেসবুকের দেয়ালে ফুটে উঠেছে। যেটি দেখলে যে কেউ বুঝবেন, আকাশ প্রচণ্ড অভিমান থেকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

ডা. আকাশ লেখেন- ‘আমার সঙ্গে তানজিলা হক চৌধুরী মিতুর ২০০৯ সাল থেকে পরিচয়। প্রচণ্ড ভালোবাসি ওকে। ও নিজেও আমাকে অনেক ভালোবাসে। ২০১৬ সালে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক দিন আগে জানতে পারি শোভন নামে এক ছেলের সঙ্গে ও হোটেলে রাত কাটায়। আরও কত কি, লজ্জা লাগছে সব লিখতে।’

এর আগে নিজের ফেসবুকে আরও একটি স্ট্যাটাস দেন আকাশ। এতে স্ত্রী তানজিলা হক মিতুর পরকীয়া ও বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি স্পষ্ট করেন ডা. আকাশ।

স্ত্রীর প্রতি ডা. আকাশের দূর্বলতা দেখে অনেকে তাকে বউ পাগলা ডাকত।যেমনটি প্রকাশ পেয়েছে ডা. আকাশের স্ট্যাটাসে। তিনি লেখেন- ‘আমার সাথে তানজিলা হক চৌধুরী মিতুর ২০০৯ সাল থেকে পরিচয়। প্রচণ্ড ভালোবাসি ওকে। ও নিজেও আমাকে অনেক ভালোবাসে। আমরা ঘুরে বেড়াই, প্রেম করে বেড়াই আমাদের ভালোবাসা কমবেশি সবাই জানে। আমাকে অনেকে বউ পাগলাও ডাকত।’

আকাশ লেখেন- ‘২০১৬-তে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক দিন আগে জানতে পারি- কিছু দিন আগে শোভন নামে চুয়েটের ৮ম ব্যাচের এক ছেলের সাথে ও হোটেলে রাত কাটায়; আর কত কি লজ্জা লাগছে সব লিখতে। ততদিনে সবাইকে বিয়ের দাওয়াত দেয়া শেষ। আমাকে যেহেতু চট্টগ্রামের সবাই চিনে, তাই বিয়ে কেনসেল (বাতিল) করতে পারিনি লজ্জাতে।’

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের এক ছাত্রের সঙ্গে মিতুর পরকীয়া তুলে ধরে ডা. আকাশ লেখেন- ‘ওর মোবাইলে দেখি, ভাইবারে দেখতে পাই মাহবুব নামে কুমিল্লা মেডিকেলের ব্যাচম্যাটের সাথে হোটেলে …শত শত ছবি। আমি তো বেঁচে থেকেও মৃত হয়ে গেলাম। তার পর ক্ষমা চাইল (স্ত্রী) শবেকদরের রাতে কান্না করে পা ধরে আর কখনো এমন হবে না। আমিও ক্ষমা করে দিয়ে এক বছর ভালোভাবেই সংসার করলাম।’

স্ত্রী সম্পর্কে ডা. আকাশ লেখেন- ‘তারপর ও দেশের বাইরে আমেরিকা গেল, মাঝখানে একবার ঈদ পালন করতে আসল সেপ্টেম্বরে ২০১৮ আবার চলে গেল ইউএসএমএলই এর প্রিপারেশন নিচ্ছিল। সাথে ফেব্রুয়ারিতে ২০১৯ এ আমারও ইউএসএ যাওয়ার কথা।’

আমেরিকাতেও মিতুর পরকীয়া ছিল এমনটি জানিয়ে ডা. আকাশ লেখেন- ‘জানুয়ারি ২০১৯ জানতে পারি ও রেগুলার ক্লাবে যাচ্ছে মদ খাচ্ছে, প্যাটেল নামে এক ছেলের সাথে…। আমি বারবার বলছি- আমাকে ভালো না লাগলে ছেড়ে দাও কিন্তু চিট করো না মিথ্যা বলো না। আমার ভালোবাসা সবসময় ওর জন্য ১০০% ছিল। আমি আর সহ্য করতে পারিনি। আমাদের দেশে তো ভালোবাসায় চিটিং-এর শাস্তি নেই। তাই আমিই বিচার করলাম, আর আমি চির শান্তির পথ বেছে নিলাম।’

ডা. আকাশ আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়ার কারণও ব্যাখ্যা দিয়েছেন স্ট্যাটাসে। ‘তোমাদেরও বলছি- কাউকে আর ভালো না লাগলে সুন্দরভাবে আলাদা হয়ে যাও চিট করো না মিথ্যা বলো না। আমি জানি অনেকে বিশ্বাস করবে না এত অমায়িক মেয়ে আমিও এসব দেখে ভালোবেসে ছিলাম। ভিতর বাহির যদি এক হতো। সবাই আমার দোষ দেবে সবকিছুর জন্য তাই ব্যাখ্যা করলাম।’

স্ত্রীর প্রতি অভিমানী ডা. আকাশ লেখেন- ‘আমার শাশুড়ি এর জন্য দায়ী এসবের জন্য, মেয়েকে আধুনিক বানাচ্ছে। একটু বেশি বানিয়ে ফেলেছে। উনি চাইলে এখনো সমাধান হতো। মা তুমি মাফ করে দিও তোমার স্বপ্ন পূরণ করতে পারলাম না। মায়ের ভালোবাসার কখনো তুলনা চলে না।’

‘বারবার বলছি- ভালো না লাগলে আলাদা হয়ে যাও চিট করো না, মিথ্যা বলো না, বিশ্বাস ভাঙ্গিও না। হাজার হাজার ছবি আছে, আরো খারাপ খারাপ দিলাম না, যারা বিলিভ করবে এতেই করবে, না করলে নাই। এই ৯ বছরে বয়ফ্রেন্ড স্বামী স্ত্রীর মতো আবার সবি করে গেল।’

৯ বছরের ভালোবাসার পরও স্ত্রীর মন না পাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে ডা. আকাশ লেখেন- ‘ও আমাকে আর কি ভালোবাসল? কিসের বিয়ে করল? আমি শেষ পর্যন্ত চাইছি সব চুপ রেখে সমাধান করে ওকে নিয়ে থাকতে। আমার শ্বশুর আর শাশুড়িকে বারবার বলছি- উনারা সমাধান করতে পারত! আমার মৃত্যুর জন্য দায়ী আমার বউ ৯টা বছর যাকে ১০০% ভালোবাসছি। ওকে প্ররোচনা দিছে মইন-মিথি নামে দুই ফ্রেন্ড, ওর মা-বাবা আমাকে মানসিক কষ্ট দিয়ে মারছে। আমিই এই বেইমানি মেনে নিতে পারি নাই। তারপরও ভুলে আমি সুন্দর সংসার করতে চাইছি।’

শ্বশুরবাড়ির প্রতি ক্ষুব্ধ ডা. আকাশ আরও লেখেন-‘আমার শাশুড়ি-শ্বশুর আর বউ নামের কলঙ্ক করতে দিল না আমাকে প্রতিনিয়ত প্রেসার দিয়ে গেছে আমার বউ আমার মার নামে যা তা যা তা বলে গেছে। আমাকে ভালো না লাগলে ছেড়ে চলে যাইতে বলছি ১০০ বার। আমি বোকা ছিলাম তুমি সুখে থেক। অনেকে ওর ফ্যান বিলিভ করবে না আমি জানি, তবে এটাই সঠিক মরার আগে কেউ মিথ্যা বলে না আর বাইরে থেকে মানুষের ভিতরের চেহারা বুঝা যায় না।’

আকাশ আরেকটি স্ট্যাটাসে লেখেন- ‘ও সুন্দরী, পড়ায় ভালো, গান পারে সত্য; কিন্তু ও ভালো অভিনেত্রী ভালো চিটার। যাদের ইচ্ছা বিলিভ করবে, যাদের ইচ্ছা নাই করবে না। তবে কাউকে ভালোবেসে চিটার গিরি করো না।’

এসব স্ট্যাটাস দেয়ার পরই আত্মহত্যা করেন ডা. আকাশ। চান্দগাঁও থানার ওসি আবুল বাশার যুগান্তরকে বলেন- প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছি, স্ত্রী তানজিলা হক চৌধুরী মিতুর সঙ্গে রাতে ঝগড়া করেন আকাশ। ভোর ৪টার দিকে তার স্ত্রী রাগ করে বাসা থেকে বেরিয়ে যান। এর পর আকাশ ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে একপর্যায়ে নিজের শরীরে ইনজেকশন পুশ করে বিষপ্রয়োগ করেন।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার যুগান্তরকে বলেন, বৃহস্পতিবার ভোর সোয়া ৬টার দিকে ডা. আকাশকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার ভাই নেওয়াজ মোরশেদ। এ সময় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন। এর আগে বুধবার রাতে হাসপাতালের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে দায়িত্ব পালন করে রাতে বাসায় যান এ চিকিৎসক।

নগরের নন্দনকানন এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে মিতুকে গ্রেফতার করা হয়। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত গণমাধ্যমকে করেছেন ।

৭ বছরের প্রেমের পরিণতি হিসেবে ২০১৬ সালে তানজিলা হককে ভালোবেসে বিয়ে করেন আকাশ। কিন্তু বিয়ের ৩ বছর না যেতেই সেই ভালোবাসা ফিকে হয়ে যায়। আকাশের ভাই নেওয়াজ মোরশেদ যুগান্তরকে জানান, আকাশের স্ত্রী মিতুর মা-বাবা আমেরিকায় থাকেন। মিতুও মাঝেমধ্যে মা-বাবার কাছে যান। ১৬ জানুয়ারি তিনি দেশে আসেন। বিয়ের বছর না যেতেই পরকীয়াসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আকাশের সঙ্গে মিতুর দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি হয়। পরকীয়া থেকে মিতুকে ফেরাতে না পেরে আমার ভাই আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। যা মৃত্যুর আগে তার দেয়া ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকেই স্পষ্ট।

ডা. আকাশ বিয়ের আগেই কিছুটা আচ করতে পেরেছিলেন মিতুর খোলামেলা জীবন সম্পর্কে। কিন্তু ততক্ষণে বিয়ের দিন তারিখ পাকা হয়ে গেছে। এ ছাড়া তিনি মিতুর শরীরী সৌন্দর্যকে অস্বীকার করতে পারেননি। সবাইকে দাওয়াত দেয়া হয়ে গেছে বিয়ে ভাঙলে তারা কী ভাববে সেটি ভেবে বিয়েটা ভেঙেও দিলেন না। স্ত্রীর চরিত্রের চেয়ে, সাংসারিক শান্তির চেয়ে ঠুনকো সামাজিক মান-মর্যাদাকেই গুরুত্ব দিলেন বেশি।