ধর্ষণের অভিযোগের পরেও আত্মবিশ্বাসী রোনালদো

ধর্ষণের মতো ভয়ংকর অপরাধের অভিযোগ উঠেছে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর বিপক্ষে। কিন্তু পর্তুগিজ তারকা ব্যাপারটি নিয়ে বাড়তি চিন্তাযুক্ত নন। নিজের বিবেকের কাছে তিনি পরিষ্কার। তিনি যে এতে জড়িত নন, সেটি প্রমাণ করতে পারবেন বলেই আত্মবিশ্বাসে কমতি নেই তাঁর। ওল্ড ট্র্যাফোর্ড চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচ খেলতে ফিরে এই প্রথম ধর্ষণ প্রসঙ্গে সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন জুভেন্টাস তারকা নিজে

পুরোনো ঝামেলাটাই নতুন করে জেগেছে রোনালদোর জন্য। তাঁর বিরুদ্ধে ২০০৯ সালে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছিলেন ক্যাথরিন মায়োরগা নামের যুক্তরাষ্ট্রের এক নারী। মায়োরগার অনুরোধেই রোনালদোর বিরুদ্ধে নতুন করে ধর্ষণের তদন্ত শুরু করেছে লাস ভেগাস পুলিশ। এ নিয়ে মিডিয়ায় হইচই কম হচ্ছে না। কিন্তু এই প্রথম ব্যাপারটি নিয়ে সরাসরি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন রোনালদো।

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে অনেক দিন পর ফিরলেন রোনালদো। চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজের সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মুখোমুখি হওয়ার আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হলো রোনালদোকে। ক্যাথরিন মায়োরগার বিষয় নিয়ে সরাসরি প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া প্রশ্নের জবাবে রোনালদোর উত্তর সাদামাটাই,‘আমি সব সময়ই একজন সুখী মানুষ। আমি যদি ভুল না করে থাকি, দুই সপ্তাহ আগে আমরা এ বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছি। এখন আমার এ ব্যাপারে কিছু বলার নেই। ব্যাপারটি নিয়ে আমি অবশ্যই মিথ্যে বলব না কিংবা লুকোচুরি করব না।’

ধর্ষণের মতো ভয়ংকর এক অভিযোগ ওঠার পরেও রোনালদো শতভাগ আত্মবিশ্বাসী, ‘আমি এবং আমার আইনজীবী এই ব্যাপারে পুরোপুরি আত্মবিশ্বাসী। সত্য সব সময়ই সবার আগে। সবচেয়ে বড় সত্য হচ্ছে আমি ফুটবলকে উপভোগ করে যাচ্ছি।’

নিজেকে রোনালদো সব সময়ই এগিয়ে রেখেছেন, এসব ব্যাপার যে তার ব্যক্তিগত জীবনে কোনো প্রভাব ফেলেনি তার কথাতেই বোঝা গেল, ‘আমি জানি, আমি অনেকের কাছেই একজন আদর্শ। শুধু মাঠে নয়, বাইরেও। সে জন্য আমি সব সময়ই ভালো থাকার চেষ্টা করি। আমার ওপর অনেকের আশীর্বাদ আছে। আমি অসাধারণ একটা ক্লাবে খেলছি, আমার একটা সুখী পরিবার আছে, চার সন্তান রয়েছে, আমি নিজেও সুস্থ। আমার সবই আছে। এসব ছাড়া আর কোনো কিছুই আমার ওপর প্রভাব ফেলে না।’