ঠাকুরগাঁওয়ে হত্যা মামলার দায়ে একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

মোঃ ইসলাম, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ
 
ঠাকুরগাঁওয়ে  হত্যা মামলার ১১ বছর পর একজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। রবিবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক বি.এম তারিকুল কবীর আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় দেয় বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আব্দুল হামিদ। এছাড়াও আসামীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। অন্যদিকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এ মামলা থেকে ১০জন আসামীকে অব্যাহতি প্রদান করে আদালত। দন্ডপ্রাপ্ত জাহেরুল ইসলাম (৪৮) জেলার হরিপুর উপজেলার গেদুড়া ইউনিয়নের মেদনীসাগর কিসমত গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আব্দুল হামিদ  বলেন, হরিপুর উপজেলার গেদুড়া ইউনিয়নের মেদনীসাগর কিসমত গ্রামে ৪ শতক জমি নিয়ে মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল প্রতিবেশী জাহেরুল ইসলামের। ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি দুপুরে ধান ক্ষেতে পানি দিয়ে বাইসাইকেলে করে বাড়িতে ফিরছিলেন মোহাম্মদ আলী। পথে জাহেরুল ইসলাম ও তার লোকজন প্রতিবেশি মোহাম্মদ আলীকে আটক করে বেধরক মারপিট করে। পরে স্থানীয় লোকজন রক্তাক্ত অবস্থায় মোহাম্মদ আলীকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি মোহাম্মদ আলীর বড় ভাই মহির উদ্দীন বাদি হয়ে হরিপুর থানায় হত্যাচেষ্টার অভিযোগে জাহেরুল ইসলামকে প্রধান করে আরও ১০জন জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। ২৮ ফেব্রুয়ারি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোহাম্মদ আলী মারা যায়। তৎকালীন হরিপুর থানার এসআই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম তদন্ত শেষে ২০০৮ সালের ২৬ জুন আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। তিনি আরও বলেন, এদিকে এ মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষ চালাবেনা মর্মে ২০১১ সালের ৪ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়; পরে ২০১৪ সালের ১০ এপ্রিল আদালত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপন বাতিল করেন। আইনজীবী আব্দুল হামিদ বলেন, মামলায় ১৮ জনের স্বাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে আসামী জাহেরুল ইসলামের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করে আদালত। এছাড়া এ মামলায় অন্য ১০ জন আসামীর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়।